মাগুরার বাণী

সেই তুমি

সেই তুমি

তার ঐ শালীন মৌনতা,
আমার হৃদয় গহীনে
অবিরত রক্তক্ষরণ ঘটিয়ে চলেছে।
হয়তোবা সে জানে,
তার অবজ্ঞা আর উপেক্ষায় পুড়ে পুড়ে,
অঙ্গার হয়ে যাচ্ছে আমার জীবন!
অথচ,জীবন গল্পের প্রতিটি অধ্যায়
আমি তাকে পড়ে পড়ে শুনালাম,
তাকে বুঝালাম,
তবু সে কিছুতেই বুঝলো না!

অতীত,বর্তমান আর বাস্তবতার দাবানলে
নিষ্পেষিত আমি এক অসহায় প্রাণ!
আমি তার দিকে তাকালাম,
অতঃপর ডেকে বললাম-
তুমি একবার আমার দিকে ফিরে চাও।
দেখো,একটিবার ভিন্ন ভাবে চিন্তা করো,
একটু চেষ্টা করো,
শুধু একটিবার সুযোগ দাও।
আমরা কি পারিনা,
আরো একবার ভাবতে?
এভাবে নত শিরে,
সুন্দর-কাব্যিক ভাষায়
বার বার তাকে বুঝিয়েছি আমি।

শব্দ করে একটা কথাও আমাকে বলেনি সে,
সেদিন সে কিছুই দিতে পারেনি আমায়।
তখন আমি আরো একবার বুঝে গেলাম,
সে আমার নয়,
সে আমার হতে আসেনি।
সম্পর্ক,বন্ধন,মায়া এগুলো সবই তার কাছে গৌণ।
কোনো এক কঠিন সত্য তার অন্তরে
গাঢ় ছলনার আড়ালে হয়তো চাপা পড়ে ছিলো।
সে কাউকেই বুঝতে দেয়নি!
কি অদ্ভুত সে!
কঠিন কোনো সত্যকে বিসর্জন দিয়ে কাছে এসেছিলো,
আবার,
আরো এক মহা সত্যকে বিসর্জন দিয়ে
চলে যেতে চায়…

অতঃপর নিয়তিকে আরও একবার মেনে নিলাম।
সমস্ত বেদনাকে চেপে রেখে তাকে বললাম,
ঠিক আছে তুমি মুক্ত।
এ সমাজের কাছে আমি বন্দী,
তুমিও বন্দী।
সমস্ত অনাকাঙ্ক্ষিত প্রশ্নের উত্তর আমি সামলে নিবো।
আমি চাইনি
যার আকাশটা রঙিন,
তার আকাশটা কালো মেঘে ঢেকে যাক।
যেখানে বিদায় নিশ্চিত,
সেখানে আমিতো বাঁধা হতে পারিনা।

আমিতো শিকারি নই,
নই দানব কিংবা পৈশাচিক মানব।
যে যেতে চায় তাকে কখনও ধরে রাখা যায়না।
মুক্ত করে দিলাম তাকে,
সুদূর আকাশটাকে দেখিয়ে বললাম-
ঐ দূরের আকাশে ডানা মেলে উড়তে উড়তে
যদি কখনও ক্লান্ত হয়ে যাও তুমি,
যদি কোনোদিন নেমে আসতে হয় নীচে,
আমি থাকবো ঠায় দাঁড়িয়ে,
শূন্য খাঁচাটা হাতে নিয়ে…

লেখক হাবিব/ মাগুরা

শেয়ার করুন
  •  
    7
    Shares
  • 7
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *