মাগুরার বাণী

মানবতার সেবায় ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন

মানবতার সেবায় ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন

নিজস্ব প্রতিনিধি:

দুইটি শাখার মাধ্যমে মাগুরা ও ঢাকাতে বর্তমান ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশনের কার্যক্রমসমূহ চরমান। যা বেটার বাংলাদেশ গড়তে সহায়তা করেছে। সৈয়দ শামসুজ্জামান চাতক স্থায়ীভাবে বসবাস করেন কানাডায় কিন্তু মানুষ, সমাজ ও মানবতার কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন বাংলাদেশে। বাবার স্মৃতি ধরে রাখতে ১৯৮৯ গড়ে তুলেছেন “ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন”। যা নীরবে-নিভৃতে অসহায় মানুষে পাশে থেকে কাজ করে চলেছে আত্ম মানবতার সেবায়। করোনা মোকাবেলায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন তিনি।

অসহায়, হতদরিদ্র মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রীসহ সামগ্রী বিতরণ করছে এ সংগঠনের সদস‌্যরা। এই সংগঠনে স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া প্রায় ২০ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন সদস্যরা বলেন, অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর প্রত্যায় নিয়ে গড়ে তোলেন ‘ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন’ নামে একটি অরাজনৈতিক সেচ্ছাসেবী সংগঠন।মাগুরা সদর উপজেলার নিজ এলাকায় প্রতি মাসে দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীকে স্কলারশিপ ও পাঠ্য বই প্রদান, প্রতিবন্ধীদের হুইল চেয়ার বিতরন, লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা, দুস্থ কর্মহীন ব্যক্তিকে ভ্যান প্রদান, জেলার বিভিন্ন ক্লাব ক্রীড়া মননে সহায়তাসহ মাগুরা জেলার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত ৩৩ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে স্কলারশিপ প্রদান করেছে ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন।

গতকাল ১৯ সেপ্টেম্বর ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে নয়টি টিউবওয়েল প্রদান করেন জেলার বিভিন্ন স্থানে। এ সময় টিউবওয়েল চেপে এ কাজের শুভ উদ্ভোধন করেন মাগুরা সদর উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাহারুল হক আখরোট। এ সময় উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানে সংখিপ্ত বক্তব্য রাখেন, সৈয়দ রবিউল ইসলাম ফুর্তি, টিপু বিশ্বাস, হাসনাত তারিক জিম, রোমান বিশ্বাস প্রমূখ।

সদর উপজেলার লক্ষীকোল গ্রামের চুন্নু বিশ্বাস বলেন, ইয়াদ আলী ফাউন্ডেশন মানবতার সেবায় এগিয়ে যাচ্ছে। এলাকার গরিব দুঃখি মানুষের অনেক উপকার করেছে। আমার এলাকার ছেলে হলেও তাকে কখনো দেখিনি।

ফাউন্ডেশনের পরিচালক আলহাজ্ব সৈয়দ শামসুজ্জামান চাতক তার ভবিষৎ পরিকল্পনা নিয়ে আলাপচারিতায় এ প্রতিবেদককে জানান, নিজ এলাকায় একটি মহিলা স্কুল ও বাংলাদেশের যেকোন জেলায় একটি বৃদ্ধাশ্রম নির্মানের পরিকল্পনা রয়েছে। অচিরেই শিশুদের জন্য একটি স্কুল নির্মান কাজ শুরু হবে। যা থাকবে সম্পন্ন ফ্রীতে। আরো ২ থেকে ৩ টি লাইব্রেরিসহ বেশ কয়েকটি স্থাপনা নির্মান কাজের পরিকল্পনা চলমান রয়েছে।

শেয়ার করুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *